দারুন কায়দায় জাল পেতে টান দিতেই মিলছে অনেক মাছ, যুবকের মাছ ধরার কৌশল হয়েছে ব্যাপক জনপ্রিয়, তুমুল ভাইরাল সেই ভিডিও!

ভেসাল জাল হলো মাছ ধরার ফাঁদ। এটি বেয়াল জাল নামেও পরিচিত। এটি এমন একটি মাছ ধরার পদ্ধতি যা

পানির একটি নির্দিষ্ট গভীরতা পর্যন্ত ডুবিয়ে দেয়া হয়। তারপর মাছ প্রবেশ করলে উত্তোলন করে মাছ ধরা হয়। এ জালগুলো অনেক সমতল বা

থলে আকৃতির, আয়তক্ষেত্র, পিরামিড বা শঙ্কুর মতো হতে পারে। বেয়াল জাল জেলে তার হাত দিয়ে পরিচালনা করতে হয়। এটি কখনো নির্দিস্থানে বসিয়ে কিংবা

নৌকা দিয়েও পরিচালনা করা যায়। [১] ভেসাল জাল কখনও কখনও “গভীর জাল” নামেও পরিচিত হয়, যদিও এ শব্দটি হাত জাল ক্ষেত্রেও

প্রয়োগ করা হয়। ভেসাল জাল বানাতে বাঁশ ও জাল তৈরি উপযোগী সুতা ব্যবহৃত হয়। সাধারণত ত্রিভুজাকৃতির একটি লম্বা বাঁশের ফ্রেম থাকে। এ ফ্রেম জুড়ে জাল সংযুক্ত করা হয়। প্রাথমিকভাবে

ছোট মাছ ধরতে এর ব্যবহার হয়ে থাকে। এটির একপাশ পানির তলদেশে ডুবে যায়, অপর পাশ জেলের হাতে থাকে। বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকা, ছোট নদী ও

খালে এর ব্যবহার বেশি দেখা যায়। জেলে একটি মাচা তৈরি করে সেখান থেকে নিজেকে নিরাপদ স্থান দাঁড় করিয়ে এ জালটি মাছ ধরার কাজে পরিচালনা করে।

নৌকা চালিত ভেসাল জাল বা বিভিন্ন জলবাহী জাহাজ থেকে পরিচালিত ভেসাল জাল রয়েছে। এসব নৌযানে কখনো কখনো হাত দ্বারা বা যন্ত্র দ্বারা জালকে উঁচু করে পানি থেকে তোলা হয় আবার পানির গভীরে পাঠানো যায়।

নৌকা বা নৌকাতে থাকা কয়েকটি খুঁটির সাথে বেঁধে শক্তভাবে যুক্ত রাখা হয়। এ জাল দিয়ে মাছ ধরতে কখনো কখনো বাতি বা বিভিন্ন কৌশল ব্যবহৃত হয়। যা মাছকে আকৃষ্ট করে এবং জালে নিয়ে আসতে সহায়তা করে

ভিডিওটি দেখতে ক্লিক করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.