এক ফোটা বী’র্যে কত ফোটা র’ক্ত থাকে?

একজন পুরুষের বী’র্য উৎপাদনের সাথে জড়িত অ’ঙ্গসমূহ তথা বী’র্যের উৎস হল: টেস্টিকল বা

টেস্টিস, ইউরেথ্রা, ভাস ডি’ফেরেন্স, প্রো’স্টেট গ্ল্যান্ড, সে’মিনাল ভেসিকল এবং লি’ঙ্গ। টেস্টিকল (অ’ণ্ডকোষ) সেমিনোফেরাস টিউবলস নামক একধরণের

পেচানো অঙ্গানু থাকে, এটিই বীর্য উৎপাদনের মূল এলাকা। এখানে মাসে ১০ কোটি শু’ক্রা’ণু তৈরি হয়। এই শু’ক্রা’ণু

তৈরি হয় ফ্রক্টোজ (একজাতীয় চিনি), দস্তা, পটাশিয়াম, ভিটামিন বি-১২, সামান্য শর্করা এবং

অন্যান্য জটিল রাসায়নিক পদার্থ থেকে। দেখতেই পাচ্ছেন এসব উপাদানের কোথাও র’ক্তের উপাদান যেমন:

হিমোগ্লোবিন, লোহিত কণিকা, শ্বেতকণিকা, অণুচক্রিকা এসবের নাম নেই। তাছাড়া র’ক্তকোষ এ ৪৬ টি ক্রোমোজোম থাকে আর বী’র্যে ২৩ টি। সুতরাং

র’ক্ত থেকে বী’র্য তৈরি হয় এটা সম্পুর্ন ভ্রান্ত ধারনা। আপনিই চিন্তা করেন। ৬০/৮০ ফোটা র’ক্ত যদি বী’র্য উৎপাদনে লাগতো তাহলে বছরে ট্রিলিয়ন সংখ্যক বী’র্য তৈরি হতে গেলে আমরা নির্ঘাত র’ক্তশূন্যতায় মারা পড়তাম।

বিয়ের পর নিয়মিত স্ত্রী স’হবা’স করা হয় সাধারণত। এতে শরীর হতে ‘বী’র্য বের হয়। শরীর ও মনে প্রফুল্লতা আসে। তবে, বী’র্য তৈরী হতে শরীরের অন্ডকোষকে প্রতিনিয়ত কাজ করতে হয়। আর এই কাজের কাচামাল হলো শর্করা সহ পুষ্টিযুক্ত খাবার ও পানীয়।

নিয়মিত দুধ,ডিম,ফল,ভাত,রুটি,শাকসবজি পরিমিত মাত্রায় খেলে স্বাস্হ ভেঙ্গে পড়বেনা। তবে, শরীরকে কম কম খাদ্য দিয়ে বেশি স’হবা’স এবং অন্যান্য পরিশ্রম করাতে চাইলে শরীর লাবণ্য হারাতে পারে, ভিটামিনের ঘাটতি হতে পারে, শরীর দুর্বল হতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.