বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কের সন্দেহে স্ত্রী-সন্তানকে গলা কে’টে হ’ত্যা

নরসিংদীতে বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কের সন্দেহে স্ত্রী-সন্তানকে গলা কে’টে হ’ত্যা করেছেন পা’ষ’ণ্ড স্বামী। রোববার দিবাগত রাত

৩টার দিকে শহরের ঘোড়াদিয়ার সঙ্গীতা এলাকায় এ হ’ত্যাকা’ণ্ডের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় স্বামী ফখরুল মিয়াকে

আ’ট’ক করেছে পুলিশ। পুলিশের ধারণা, বিয়ে বহির্ভূত সম্পর্ক নিয়ে সন্দেহে তাদের হ’ত্যা করা হয়ে থাকতে পারে। নি’হ’তরা হলেন,-

রেশমী আক্তার ও তার দেড় বছরের ছেলে সালমান সাফায়াত। রেশমীর বাবার বাড়ি পৌর শহরের দত্তপাড়া এলাকায়। সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা

(ওসি) সওগাতুল আলম নিউজবাংলাকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেন। স্থানীয় লোকজন ও নিহতের স্বজনেরা জানায়, ২ বছর আগে

পারিবারিকভাবে রেশমীর সঙ্গে ফখরুলের বিয়ে হয়। বিয়ের কয়েকমাস পর থেকেই স্বামী ও

শ্বশুরবাড়ীর লোকজন রেশমীর উপর নি’র্যা’তন করতো। এরই মধ্যে তাদের ঘরে একটি ছেলে সন্তানের জন্ম হয়। কিন্তু

নি’র্যা’তন বন্ধ হয়নি। সবশেষ রোববার রাত ৩টার দিকে রেশমী ও তার সন্তানকে গলাকে’টে হ’ত্যা করা হয়। পরে খবর পেয়ে পুলিশ এসে ঘর থেকে ম’র’দেহ উদ্ধার করে।

নি’হ’তের বাবা পারভেজ মিয়া বলেন, ‘বিয়ের পর থেকেই তারা আমার মেয়েকে বিভিন্নভাবে নি’র্যা’তন করত। আমাদের কথা ভেবে রেশমী আমাদেরকে কিছুই জানাতো না।’ তিনি আরও বলেন, ‘ফখরুল মা’দ’কা’শ’ক্ত ছিল। কিন্তু আমরা জানতাম না। এসব তথ্য আমাদের কাছে গোপন রেখেই বিয়ে দেয়া হয়। আমার মেয়ে ও নাতি হ’ত্যা’র বিচার চাই।’

সদর থানার ওসি সওগাতুল আলম বলেন, ‘রেশমীর বিয়েবহির্ভূত সম্পর্ক আছে মনে করে তার স্বামী স’ন্দেহ করত। এর জের ধরে ফখরুল মিয়া তার স্ত্রী ও সন্তানকে গলাকে’টে হ’ত্যা করেন। ফখরুলকে আটক করা হয়েছে।’ তিনি আরও বলেন, ‘ময়নাতদ’ন্তের জন্য ম’র’দেহ উদ্ধার করে সদর হাসপাতালের ম’র্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published.